বরিশালে স্কুলের বেতন ও পরীক্ষার ফি দাবী করায় ক্ষোভ

প্রকাশ: 11 October, 2020 6:06 : PM

বরিশলে করোনাকালে স্কুলের সমুদয় বকেয়া বেতন এবং পরীক্ষার ফি দাবী করায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছে অভিভাবকরা। এমনকি বেতন ফি না দিতে পারলে পরীক্ষার উত্তরপত্র দেয়া হবে না বলে হুমকী দেয়া হয়েছে বলেও অভিযোগ করেছে অভিভাবকরা। তবে এ অভিযোগ অস্বীকার করে স্কুল কর্তৃপক্ষ দাবী করেছে তার এমপিওহীন কর্মচারীর জন্য টাকা নিচ্ছেন এবং যারা অসচ্ছল তাদের টাকা নেবেন না।

ঘটনাটি আজ রোববার নগরীর রূপাতলী এ ওয়াহেদ মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে ঘটেছে।

স্কুলের শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা অভিযোগ করেন, করোনাকালে বিদ্যালয়ে এতো শিক্ষার্থীর জড়ো হওয়া আশঙ্কাজনক। তারপরও এর মধ্যে টাকা জমা দিতে বলেছে শিক্ষকরা। তাদের অনেকেই অনলাইন ক্লাস করেনি। এতোদিন স্কুল কর্তৃপক্ষেরও তেমন কোন উদ্যেগ ছিলনা। হঠাৎ করেই গত ৮ অক্টোবর তাদের মোবাইলফোনে জানানো হয়, ১১ অক্টোবরের মধ্যে বকেয়া বেতন ও পরীক্ষার ফি জমা দিয়ে উত্তরপত্র নিয়ে যেতে হবে। ১২ অক্টোবর থেকে নিজ ঘরে বসে পরীক্ষা দেবে শিক্ষার্থীরা। কিন্তু তাদের কাছে অতিরিক্ত টাকা দাবী করা হয়েছে। তারা টাকা মওকুফের জন্য আবেদন করলেও তাদের সাথে দুর্বব্যহার করে স্কুল কর্তৃপক্ষ।

তবে স্কুল কর্তৃপক্ষ পুরো বিষয়টি নিয়ে সাংবাদিকদের সাথে লুকোচুরি করার চেষ্টা করে।

এ ওয়াহেদ মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম জানান, আমরা বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থীর বেতন মওকুফ করেছি, প্রয়োজনে অন্যান্য শিক্ষার্থীদের বেতনও মওকুফ করা হবে।